বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

আয় বেড়েছে গ্রামীণফোনের, কমেছে মুনাফা…

নিজস্ব প্রতিবেদক: চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে মুনাফায় পিছিয়ে পড়েছে বহুজাতিক কোম্পানি গ্রামীণফোন। ইন্টারনেট ডেটা আয়ে ভর করে আগের বছরের তুলনায় চলতি বছরে আয় বাড়লেও মুনাফা ধরে রাখতে পারেনি কোম্পানিটি। এর মধ্যে প্রায় দুই হাজার ১০০ কোটি টাকা ফোরজিতে বিনিয়োগ করেছে গ্রামীণফোন।

সূত্র জানায়, ২০১৮ সালের জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত প্রথম প্রান্তিকে প্রায় তিন হাজার ১২০ কোটি টাকা আয় করেছে গ্রামীণফোন। এ আয় আগের আর্থিক বছরের একই সময়ের তুলনায় দুই শতাংশ বেশি। চলতি বছরেও আয় বৃদ্ধিতে ইতিবাচক ভূমিকা রেখেছে ইন্টারনেট ডেটা আয়। এ খাত থেকে কোম্পানিটির আয় বেড়েছে ২৩ দশমিক ৯ শতাংশ। অন্যদিকে ভয়েস কলের আয়েও তিন দশমিক ৯ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে। প্রথম প্রান্তিকের তিন মাসে নতুন প্রায় ২১ লাখ গ্রাহক গ্রামীণফোনের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে। আর প্রায় ১১ লাখ নতুন ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর কারণে এ প্রান্তিকে গ্রামীণফোনের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৪৭ দশমিক আট শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

গ্রামীণফোনের সিইও মাইকেল প্যাট্রিক ফোলি বলেন, ‘আমরা নতুন স্পেকট্রাম ও তরঙ্গ নিরপেক্ষতার সহায়তায় সেরা গ্রাহক অভিজ্ঞতা প্রদানে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি ফোরজি সেবা চালু করি। নেটওয়ার্কের মানের ক্ষেত্র আমাদের উচ্চতর অবস্থান আরও সংহত করতে একটি দৃঢ় নেটওয়ার্ক বিস্তার ও আধুনিকায়ন পরিকল্পনা আছে। প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশেও এ প্রান্তিকে আমরা আয় ও গ্রাহক প্রবৃদ্ধি দেখেছি। আমরা বাজারে ভয়েস ও ডেটার বেশকিছু প্রাসঙ্গিক অফার ছেড়েছিলাম, যা রাজস্ব আয়ের ভিত্তি এবং ব্যবহার বাড়িয়েছে।’

এদিকে প্রথম প্রান্তিকে মোট আয়ের প্রায় ৮৮ শতাংশই রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দিয়েছে গ্রামীণফোন। এ কারণে আয়কর প্রদানের পর কোম্পানিটির মুনাফা প্রায় ৬৪০ কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে। আয়কর খাতে বাড়তি ব্যয়ের কারণে গ্রামীণফোনের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) প্রায় আড়াই পয়সা কমেছে। প্রথম প্রান্তিক শেষে ইপিএস দাঁড়িয়েছে চার টাকা ৭৪ পয়সা, যা এর আগের আর্থিক বছরের একই সময়ে চার টাকা ৮৬ পয়সা ছিল।

এ বিষয়ে গ্রামীণফোনের সিএফও কার্ল এরিক ব্রোতেন জানিয়েছেন, গ্রামীণফোন এ প্রান্তিকে স্বাস্থ্যকর প্রবৃদ্ধির মধ্য দিয়ে স্থিতিশীলতা অর্জন করেছে। এ অর্জন এসেছে ফোরজি চালু করার জন্য। উন্নত গ্রাহক অভিজ্ঞতা ও মার্কেট অফারে আমাদের বিনিয়োগ ভবিষ্যতে প্রবৃদ্ধি অর্জনে সহায়ক হবে।

সম্পাদক মোঃ মিজান খান

সম্পাদক ও প্রকাশক মোঃমিজান খান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Read In English»
Close