সময় সংবাদ

ছাত্রীদের ওপর নির্যাতনের অভিযোগে ছাত্রলীগ নেত্রীকে গণধোলাই!

ছাত্রীদের ওপর নির্যাতনের অভিযোগে বরিশাল সরকারি ব্রজমোহন কলেজের বনমালী গাঙ্গুলী ছাত্রীনিবাসে এক ছাত্রলীগ নেত্রীকে গণধোলাই দিয়েছে বিক্ষুব্ধ ছাত্রীরা। পাশাপাশি তার কক্ষের আসবাবপত্রও পুড়িয়ে দিয়েছে তারা।

রোববার (২২ এপ্রিল) সন্ধ্যায় ছাত্রী নিবাসের দুই নম্বর ভবনে এ ঘটনা ঘটে।

সাধারণ ছাত্রীরা ছাত্রীনিবাসের সামনের ব্যস্ততম সড়ক অবরোধ করে কিছুক্ষণ বিক্ষোভ করে। পরবর্তীতে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

ছাত্রীদের কয়েকজন জানিয়েছেন, গণধোলাইর শিকার ছাত্রলীগ নেত্রী ফারজানা আক্তার ঝুমুর বিএম কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের ৩য় বর্ষের ছাত্রী।

জানা গেছে, ঝুমুর দীর্ঘদিন যাবৎ কলেজের বনমালী গাঙ্গুলী ছাত্রীনিবাসে থাকার পাশাপাশি হলের আবাসিক ছাত্রীদের নানা ভাবে হয়রানি ও উত্ত্যক্ত করত। নানা অপকর্মে ছাত্রীদের ডাকত সে। তার ডাকে কেউ অপকর্মে অংশগ্রহণ না করলে মারধর থেকে শুরু করে নানা নির্যাতন করত এই ছাত্রলীগ নেত্রী। এই ঘটনার জেরে হলের আবাসিক ছাত্রীরা জোটবদ্ধ হয়ে বিএম কলেজের অধ্যক্ষ বরাবর একটি স্মারকলিপিও প্রদান করেন।

স্মারকলিপিতে বলা হয়, ছাত্রীনিবাসের আবাসিক ছাত্রী ও ছাত্রলীগ নেত্রী ফারজানা দীর্ঘদিন যাবৎ সাধারণ ছাত্রীদের নানা অনৈতিক কর্মকান্ড করার জন্য চাপ প্রয়োগ করত। আর তার কথা না শুনলেই মারধর থেকে শুরু করে নানা অত্যাচার করে থাকে। এছাড়া ঝুমুর ইয়াবা ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। ছাত্রলীগের নাম বিক্রি করে সে ছাত্রীনিবাসে নৈরাজ্য সৃষ্টি করে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিচালনা করছে বলেও উল্লেখ করা হয়।

এর মধ্যে সম্প্রতি বনমালী গাঙ্গুলী ছাত্রীনিবাসের ২ নম্বর ভবনের ঐশী নামে এক আবাসিক ছাত্রী ঝুমুরের কথা না শোনায় তাকে ঘুমন্ত অবস্থায় বেধড়ক মারধর করা হয়। পরবর্তীতে ঐশীকে ছাত্রীনিবাস থেকে বের করে দেয়া হয়। ১৯ মার্চ ২নম্বর ভবনের অপর আবাসিক ছাত্রী শারমিনকেও বেধড়ক মারধর করে ঝুমুর। সর্বশেষ ২০ এপ্রিল জান্নাত ও ইভা শিকদার নামে দুই ছাত্রীকে মারধরের হুমকি দেয় সে।বনমালী গাঙ্গুলী ছাত্রীনিবাসের ২ নম্বর ভবনের আবাসিক ছাত্রী রহিমা আফরোজ ইভা জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ রাজনৈতিক দোহাই দিয়ে ঝুমুর অস্বাভাবিক পথে চলছে। সে নানা অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত। আর তার কথা মতো কেউ না চললেই তার
নির্যাতন করে সে।জান্নাতুল ফেরদৌস নামে আরেক ছাত্রী জানান, ‘ঝুমুরের বিষয়ে একাধিক প্রভাবশালী নেতাকে জানানো হয়েছে। তবে ঝুমুরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে তারাও ব্যর্থ হয়েছে।’

ছাত্রীনিবাস সূত্রে জানা গেছে, স্মারকলিপি দেয়ার বিষয়টি ঝুমুর টের পাওয়ায় সে স্মারকলিপি দেয়া ছাত্রীদের চড়-থাপ্পড় দেয়া শুরু করে। একপর্যায়ে সাধারণ ছাত্রীরা জোটবদ্ধ হয়ে ঝুমুরকে গণধোলাই দেয়। এর পাশাপাশি ঝুমুরের রুমে থাকা আসবাবপত্র মূল সড়কে এনে পুড়ে ফেলে। এসময় বেশ কিছুক্ষণ সড়কে যান চলাচলও বন্ধ ছিল।

বরিশাল ব্রজমোহন কলেজের উপাধ্যক্ষ স্বপন কুমার পাল ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বিষয়টি মীমাংসার চেষ্টা চলছে বলে জানান। ছাত্রীনিবাসে কয়েকজন শিক্ষককে পাঠানো হয়েছে।

বরিশাল কোতয়ালি মডেল থানার সহকারি কমিশনার শাহনাজ পারভীন বলেন, ‘পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। কলেজ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Read In English»
Close