সময় এক্সক্লুসিভ

সৈয়দপুরে যৌন হয়রানির অভিযোগে শিক্ষক বরখাস্ত, শিক্ষার্থীদের ক্লাস বর্জন-সড়ক অবরোধ

নীলফামারীর সৈয়দপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের এস এম শফিউল আজম নামে এক শিক্ষককে  যৌন হয়রানির অভিযোগে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। এর প্রতিবাদে ওই বিদ্যালয়ের প্রায় সহস্রাধিক শিক্ষার্থী মঙ্গলবার ক্লাশ বর্জন করে শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে বিক্ষোভ ও অবরোধ করেছে। এনিয়ে ওই বিদ্যালয়ে অচলাবস্থা বিরাজ করছে।

জানা গেছে, ওই বিদ্যালয়ের ৭ ম শ্রেণীর কয়েকজন শিক্ষার্থী শিক্ষক শফিউল আজমের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ তুলে। পরে স্কুলের পরিচালন পর্ষদ ওই শিক্ষককে গতকাল সোমবার সাময়িক বরখাস্ত করে তদন্ত কমিটি গঠন করেন।

এ ঘটনায় এদিনই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ক্লাস বর্জন করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। এতেও কোনো সুরাহা না হওয়ায় পরের দিন আজ মঙ্গলবার শিক্ষার্থীরা শহরের বঙ্গবন্ধু সড়ক অবরোধ করে। প্রায় ঘন্টাব্যাপী সড়ক অবরোধের পর এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে স্মারকলিপি প্রদান করে শিক্ষার্থীরা।

স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়,  স্কুলের সম্পদের লুণ্ঠন এবং সম্পদের সঠিক ব্যবহার ও হিসেব চাওয়ায় আমাদের শিক্ষককে ষড়যন্ত্র করে স্কুল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এ সমস্যার সঠিক সমাধান না হলে ক্লাশে শিক্ষার্থীরা ফিরবে না। অনির্দিষ্টকালের জন্য এ অচলাবস্থা অব্যাহত থাকবে। প্রয়োজনে আমরা এর চেয়েও কঠিন আন্দোলনে যাব বলে হুঁশিয়ারি দেয় তারা।

ওই বিদ্যালয়ের  ৭ম শ্রেণীর ক্লাস ক্যাপ্টেন রিক্তা জানান, আমরা ভিন্ন শিক্ষক চেয়েছি। তার মানে এই নয় যে, স্যার আমাদের সাথে খারাপ আচরণ করে। তুচ্ছ একটি বিষয়কে নিয়ে একজন শিক্ষককে বহিষ্কার করা হবে জানলে অভিযোগ করতাম না।

অভিযুক্ত শিক্ষক বলেন, ‘এ স্কুলের অধীনে প্রায় ৬৫ টি দোকান রয়েছে। তারা এ সকল দোকানের ভাড়া উত্তোলন করে স্কুলের নথিতে মনগড়া হিসাব দাখিল করেন। এর প্রতিবাদ করায় বিগত ১০ বছর ধরে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

সম্প্রতি একটি দোকান ঘর বাড়ানোর কাজে বাঁধা দেই। বিষয়টিকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে স্কুল কমিটি অভিযোগের তদন্ত না করেই  অন্যায়ভাবে এ সাময়িক বরখাস্ত করেছে। এতে প্রাক্তনসহ বর্তমান শিক্ষার্থীরা আমার পক্ষে কর্মসূচি দিচ্ছে। আমি এ অন্যায়ের সঠিক বিচার চাই।’

ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. আনোয়ারুল হক বলেন, ‘কোনো ষড়যন্ত্র নয়। এটি তার অপকর্ম। অভিযোগের ভিত্তিতে আলোচনা করে বিধি মোতাবেক তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তিনি দোষী প্রমাণিত না হলে আবার কর্মে যোগ দিতে পারবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *