জেলা সংবাদ

রমজানকে সামনে রেখে শৈলকুপায় মিষ্টির পঁচা রস দিয়ে তৈরী হচ্ছে ভেজাল গুড়….

আরাফাতুজ্জামান, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: আসন্ন রমজানকে সামনে রেখে ঝিনাইদহের শৈলকুপায় মিষ্টির পঁচা রস সংগ্রহ করে তা দিয়ে কৃত্তিম উপায়ে গুড় তৈরী করা হচ্ছে। যা মানব দেহের জন্য খুবই ক্ষতিকর।

কৃত্তিম উপায়ে তৈরী এ সকল বিষাক্ত গুড় ও পাটালী উপজেলাসহ আশপাশ এলাকায় বাজারজাত করা হচ্ছে। ধোকা দেওয়া হচ্ছে সাধারণ ক্রেতাদের। এ সকল গুড় খেয়ে অনেকের পেটে সমস্যা হলেও আসল রোগ নির্নয় হচ্ছে না। দীর্ঘদিন ধরে এ কাজ করে চলেছেন উপজেলার বগুড়া ইউনিয়নের আলফাপুর গ্রামের সুশীল কুন্ডু। তিনি তার বসতবাড়ীতেই এ অবৈধ কারখানা বসিয়ে স্ত্রীকে সাথে নিয়েই কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, আলফাপুর গ্রামের চান মিয়ার প্রতিবেশী সুশীল কুন্ডু দীর্ঘদিন যাবৎ বিভিন্ন মিষ্টির দোকান ও কারখানা থেকে মিষ্টির পরিত্যাক্ত রস সংগ্রহ করেন। এরপর তা বাড়ীতে এনে বড় বড় ৫/৬টি প্লাস্টিক ড্রামে করে দীর্ঘদিন মুখ আটকে রেখে পঁচানো হচ্ছে।

এছাড়াও তার সংগ্রহে পুরাতন পঁচা গুড়ও রয়েছে। যে গুড়ের মধ্যে বিভিন্ন রকমের পোকা-মাকড় ও মাছি মরে পঁচে আছে। আর এই পুরাতন পঁচা গুড়ের সাথে মিষ্টির পঁচা রস, চিনি ও বিষাক্ত মেডিসিন মিশ্রন করে আগুনে জ্বালিয়ে তৈরী করা হচ্ছে বিভিন্ন রকম পাটালি ও খেজুরে গুড়। তৈরীর পর যা দেখলে মনে হবে এদকম আসল।

এ সকল পন্য বাজারজাতের উদ্দেশ্যে পাতিলজাত করার পর কোনটা আসল আর কোনটা কৃত্তিম উপায়ে তৈরী তা সাধারণ মানুষের ধরার ক্ষমতা নেই বললেই চলে। তৈরীকৃত এ সকল গুড় মানব দেহের জন্য খুবই ক্ষতিকর বলে জানা গেছে।

গুড়ে জাল চলাকালীন কারখানার মালিক ও কারিগর সুশীলের সাথে কথা হলে তিনি জানান, এভাবে দীর্ঘদীন ধরে গুড় তৈরি করে আসছেন। এ বিষয়ে ক্রেতাদের কোনো অভিযোগ নেই। এই গুড় ও পাটালী শৈলকুপাসহ আশপাশ এলাকায় বিক্রি করে থাকেন। রমজানের মাসে গুড়ের চাহিদা বেশী থাকে।

বিশেষ করে যখন অফ সিজেন তখন এই গুড়ের চাহিদা বাজারে বেশী থাকে। এ বছরের তৈরী করা গুড় আগামী বছরেও চালানো সম্ভব। কেন না কৃত্তিম উপায়ে তৈরী এ সকল গুড় সহজে নষ্ট হয় না। তবে ওই সময় সুশীলকে গুড় খেতে বললে তিনি রেগে গিয়ে বলেন, হাজার টাকা দিলেও এ গুড় আমার দ্বারা খাওয়া সম্ভব নয়।

স্থানীয়রা জানায়, সুশীল তার প্রতিবেশী এক মাতব্বরের সহযোগিতায় দীর্ঘদিন যাবৎ এই অপকর্ম করে আসছে। দ্রুত এই অবৈধ গুড় তৈরীর কারখানা উচ্ছেদ ও জড়িতদের শাস্তির দাবীতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।
সূত্র- সময়ের কন্ঠসর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *