মঙ্গলবার, ১৯ Jun ২০১৮, ০৬:৩৯ অপরাহ্ন

জুয়া খেলার টাকা না পেয়ে এক বৃদ্ধ মাকে ঘর থেকে বের করে দিলো পাষণ্ড ছেলে

জুয়া খেলার টাকা না পেয়ে এক বৃদ্ধ মাকে ঘর থেকে বের করে দিলো পাষণ্ড ছেলে

জুয়া খেলার টাকা না পেয়ে এক বৃদ্ধ মাকে গলা ধাক্কা দিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে এক পাষন্ড ছেলে। এমনকি তার মায়ের শেষ আশ্রয়স্থল থাকার ঘর ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়েছে। সম্প্রতি নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার মধ্যরাজিব গ্রামে এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে। আর এ ঘটনায় পুলিশ ওই পাষন্ড ছেলেকে আটক করে থানায় নিয়ে এসেছে।

অভিযোগ ও সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, কিশোরগঞ্জ সদর ইউনিয়নের মধ্যরাজিব গ্রামের মৃত্যু আবুল হোসেনের স্ত্রী আম্বিয়া বেগম স্বামীর মুত্যুর পর তাঁর বড় ছেলে আজিজার রহমানের বাড়ির সাথে ছ্রোট একটি টিনের চালায় বসবাস করে আসছিল। আম্বিয়া বেগমের চার ছেলে ও এক মেয়ে । স্বামীর মৃত্যুর পর থেকে আম্বিয়া বেগম অন্যের জমিতে কাজ করে ও বড় ছেলে আজিজার রহমানের বাড়িতে থেকে জীবিকা নির্বাহ করত।

আম্বিয়া বেগম কর্মসৃজন প্রকল্পের শ্রমিক হিসাবে কাজ করার কারনে গত মাসে বিল উত্তোলন করে কিছু টাকা জমিয়ে রাখে। তৃতীয় ছেলে মহুবার রহমান তাঁর মায়ের কাছ থেকে জুয়া খেলার জন্য সেই টাকা চাইতে গেলে মা টাকা দিতে অস্বীকার করলে মহুবার তাঁরমা আম্বিয়া বেগমকে গলা ধাক্কা দিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দিয়ে মায়ের শেষ আশ্রয়স্থল থাকার ঘরটি গুড়িয়ে দেয়।

খবর পেয়ে কিশোরগঞ্জ থানা পুলিশ গিয়ে মাকে উদ্ধার করে পাষন্ড ছেলে মহুবারকে থানায় নিয়ে আসে।কিশোরগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনিছুল ইসলাম আনিছ বলেন, ওই পাষন্ড ছেলে মহুবার এর আগে অনেকবার তার মাকে মেরেছিল। আমি নিজে তার অনেক শালিস করেছি কিন্তু সে ভাল হয়নি।কিশোরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ হারুন অর রশিদ বলেন, ছেলে কতৃক মাকে নির্যাতনের খবর পেয়ে পুলিশ পাঠিয়ে ওই পাষন্ড ছেলেকে আটক করে থানায় নিয়ে এসেছি। এখন তাঁর বিরুদ্ধে আইননানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সংবাদটি ফেজবুকে সেয়ার করুন

অামাদের সংবাদ সংক্রান্ত তর্থ্য

সকল প্রকাশিত/সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট ইত্যদি অনলাইনের নানা সূত্র থেকে সংগৃহীত। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ীনয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের এবং প্রকাশিত সূত্রের। অামাদের প্রকাশিত সংবাদে কোন অভিযোগ থাকলে অামাদের জানাতে পারেন।


© All rights reserved © ২০১৭-২০১৮ দৈনিক সময়. কম
Design & Developed BY দৈনিক সময়
[X]