শুক্রবার, ২২ Jun ২০১৮, ০৯:৪১ পূর্বাহ্ন

সেই ঐতিহাসিক মিশরের নিল নদ বা দরিয়া পড়ুন বিস্তারিত…

সেই ঐতিহাসিক মিশরের নিল নদ বা দরিয়া পড়ুন বিস্তারিত…

মিশরের নিল দরিয়া, প্রতি বছর শুকিয়ে যেত। আর একটি সুন্দরী কুমারী মেয়েকে হত্যা করে তার রক্ত যখন ঐ নিল দরিয়ায় দিত, সাথে সাথে শুকনো নিল দরিয়া পানিতে ভরে যেত। এভাবে চলতে লাগল। পর্যায় ক্রমে হযরত ওমর (র:) এর খেলাফত আমলে যখন মিশর মুসলমানের হাতে বিজয় হলো, হযরত ওমর (র:) হযরত ওমর বিন আছ্ কে মিশরের গভর্নর হিসেবে, মিশরে নিয়োগ করলেন। আর যখন প্রতি বছরের ন্যায় নিল দরিয়ার পানি শুকিয়ে গেল, নিল দরিয়ার গভর্নর হযরত ওমর বিন আছ্ চিন্তায় পড়ে গেল। না, কোন কুমারী হত্যা করে তার রক্ত আর প্রবাহিত করা চলবে না। দেখা যাক, এর ফায়সালা আমিরুল মোমেনীন কি করে। মিশরের গভর্নর, আমিরুর মোমেনীন হযরত ওমর (র:) এর নিকট এ ব্যাপারে পয়গাম পাঠালো। সমস্ত ঘটনা হযরত ওমর (র:) জানার পর, নিল দরিয়ার উদ্দেশ্য একটি চিটি লিখল।
“মিন্ আব্ দিল্লাহ ওমর বিন্ খাত্তাব ইলা নিলে মিশর আম্মাবাদ ইন্ কুন্তা তজ্ রী বি আমরিল্লাহ ফা ইন্না নাছআলু ইজরা আকা মিনাল্লাহ ওয়া ইন্ কুন্তা তাজ্ রী মিন্ ইন্দিকা ফালা হা জাতা লানা বিকা”
অর্থাৎ- এই চিটি আল্লাহর বান্দা হযরত ওমর বিন খাত্তাব এর তরফ থেকে নিল দরিয়ার উদ্দেশ্য। হে নিল দরিয়া! যদি তুমি আল্লাহর হুকুমে জারি হয়ে থাক, তবে আমি তোমাকে অনুরুদ করছি, আল্লাহর হুকুমে তুমি জারী হয়ে যাও। আর যদি তুমি নিজের স্বইচ্ছায় জারী বা বন্দ হয়ে থাকলে, তবে তোমার জরুরত আমাদের প্রয়োজন নাই। তুমি তোমার মত চল।
অতঃপর হযরত ওমর (র:) চিটিটি মিশরের গভর্নর এর নিকট প্রেরন করলেন, আর বললেন, চিটিটি যেন কোন কুমারী মেয়ের হাতে শুকনো নিল দরিয়ায় ছেড়ে দেওয়া হয়। মিশরের গভর্নর আমিরুল মোমেনীন হযরত ওমর (র:) এর চিটিটি হুকুম মাফিক, একটি কুমারী মেয়ের হাতে দিয়ে, নিল দরিয়ায় যখন ছেড়ে দিচ্ছিল, তখন চথুর্দিক থেকে হাজার হাজার দর্শক দূর দুরান্ত থেকে এসে নিল দরিয়ার পার্শ্বে সমবেত হলো। দেখাযাক কি ঘটে, সবার নজর দরিয়ার দিকে। কিন্তুু আল্লাহু আকবর, যখন চিটিটি নিল দরিয়ায় ছাড়া হলো, সাথে সাথে এত বিশাল দরিয়ায়, বিকট্ আওয়াজে চথুর্দিক থেকে সাইক্লোনের মত পানি এসে পুরু নিল দরিয়া পানিতে ভরে গেল। এবং সেই থেকে এ পর্যন্ত আর নিল দরিয়ার পানি শুকায়নাই। সুবহান আল্লাহ। (তারিখে খোলাফা ৯০

ফেজবুক থেকে সংগৃহীত

সংবাদটি ফেজবুকে সেয়ার করুন

অামাদের সংবাদ সংক্রান্ত তর্থ্য

সকল প্রকাশিত/সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট ইত্যদি অনলাইনের নানা সূত্র থেকে সংগৃহীত। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ীনয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের এবং প্রকাশিত সূত্রের। অামাদের প্রকাশিত সংবাদে কোন অভিযোগ থাকলে অামাদের জানাতে পারেন।


© All rights reserved © ২০১৭-২০১৮ দৈনিক সময়. কম
Design & Developed BY দৈনিক সময়
[X]