মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ০২:০৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
কলাপাড়ায় যাত্রীবাহী বাস পুকুরে পড়ে আহত ১৩…. হাদিসের গল্পঃ পাহাড়ের গুহায় আঁটকে পড়া তিন যুবক…. ফেনীতে সংখ্যালঘুরা হামলা বা নির্যাতনের স্বীকার হলে,নির্যাতন কারীদের জায়গা ফেনীর মাটিতে হবেনা-নিজাম উদ্দিন হাজারী এমপি…. ফেনী র‍্যাব-৭ এর একিদিন চালানো দুটি অভিযানে অস্ত্র গুলি ও মাদক উদ্ধার সহ আটক-৩…. কালীগঞ্জে বিপুল পরিমান ফেন্সিডিল ও পিকআপ ভ্যানসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক…. ঝিনাইদহে পুলিশের বিশেষ অভিযানে ১ জামায়াত কর্মীসহ ৫৮ জন গ্রেফতার…. রংপুর শহরে দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে পাঁচজন নিহত… চট্টগ্রামে বাস-ট্রেন সংঘর্ষে নিহত ২…. ফেনীর দাঘনভূঞাঁয় বিএনপি’র ৪০ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর মঞ্চ ভেঙ্গে গুটিয়ে দিয়েছে দূবৃর্ত্তরা… ফেনীর ছাগলনাইয়ায় মহামায়া ইউপি চেয়ারম্যানকে মারধরের অভিযোগে ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ….
কানাডার আকাশে মলমূত্রের বৃষ্টি থামছেই না

কানাডার আকাশে মলমূত্রের বৃষ্টি থামছেই না

কানাডার বিভিন্ন এলাকায় আকাশ থেকে মলমূত্র বর্ষিত হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনা অব্যাহত রয়েছে এক মাস ধরে। এ ব্যাপারে সরকার মুখ খুলছে না। কোনো সম্ভাব্য ব্যাখ্যাও পাওয়া যাচ্ছে না, জানিয়েছে আইএফএলসায়েন্স।

ঘটনাটি শুরু হয় মে মাসের ৯ তারিখে। কানাডার ব্রিটিশ কলাম্বিয়া এলাকায় গাড়িতে করে যাচ্ছিলেন এক নারী ও তার ছেলে। গাড়িটি ট্রাফিক সিগন্যালে থামার পর এর সানরুফ দিয়ে তরল মল পড়তে থাকে তাদের ওপর। এতে ভয় ও ঘৃণায় কেঁদে ফেলেন সুজান অ্যালান নামের ওই নারী। ভাবেন হয়তো তার গাড়ির ওপর কোনো পাখি বা বন্য জন্তু এসে বসেছে। কিন্তু ওপরের দিকে তাকিয়ে আকাশে একটি বিমান ছাড়া কিছুই দেখতে পাননি তিনি।

এ ঘটনার তিনদিন পর একই শহরের এক ব্যক্তি বাড়ি থেকে বের হয়ে দেখেন, তার গাড়ির ওপর তরল মলের বৃষ্টি হয়ে গেছে। ওই শহর থেকে ৩০০০ কিলোমিটার দূরে এক নারী নিজের বারান্দায় বসে ছিলেন। বিকেল ৪টার দিকে তার বারান্দা ও জানালায় বৃষ্টির মতো কালচে তরল মল বর্ষিত হয়।

লিন্ডা স্মিথ নামের ওই নারী সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘দেখে মনে হচ্ছিল একটা সেপটিক ট্যাঙ্ক ফেটে মলমূত্র ছড়িয়ে পড়েছে।’

এ পর্যন্ত কানাডার ১৮ জন বাসিন্দা এমন মলমূত্র বৃষ্টির অভিযোগ করেছেন। কিন্তু এর পেছনে কারণ কী?

কেউ দাবি করছেন, উড়ন্ত বিমান থেকে পড়ছে এসব মল। উড়ন্ত অবস্থায় বিমানের শৌচাগার খালি করার নিয়ম নেই। কিন্তু দুর্ঘটনা মাঝে মাঝে ঘটে। সেক্ষেত্রে সাধারণত মলমূত্র জমে বরফ হয়ে যায় এবং বিমানের গায়ের সাথেই লেগে থাকে। বিমানবন্দরে নামার সময়ে এসব বরফ গলে বৃষ্টির মত পড়তে পারে।

এসব ঘটনার অভিযোগ পাওয়ার পরেও সরকার থেকে কোনো ব্যাখ্যা দেওয়া হয়নি। ট্রান্সপোর্ট কানাডা জানিয়েছে, এই ১৮ ঘটনার কোনোটিই বিমান থেকে পতিত বর্জ্য নয়।

এসব মলমূত্র পাখির বিষ্ঠা বলেও মানতে নারাজ বিশেষজ্ঞরা। অনেকগুলো পাখি মিলে একই সময়ে মলত্যাগ করেছে, তা প্রায় অসম্ভব। আর এ ঘটনা একাধিকবার ঘটাও সম্ভাব্য নয়। ওই মলের নমুনা সংগ্রহ করে তার ডিএনএ বিশ্লেষণ করে এই রহস্য সমাধানের চিন্তা করছেন বিজ্ঞানীরা।

সূত্রঃপ্রিয় ডট কম


সংবাদটি ফেজবুকে সেয়ার করুন


© All rights reserved © ২০১৭-২০১৮ দৈনিক সময়. কম
Design & Developed BY দৈনিক সময়
Translate »