রবিবার, ২২ Jul ২০১৮, ০১:৩৭ পূর্বাহ্ন

প্রেম-বিয়ে-খুনই যার নেশা!

প্রেম-বিয়ে-খুনই যার নেশা!

প্রেম-বিয়ে-খুন! এটাই শেখ শাহজাদার নেশা। একটার পর একটা পর বিয়ে। এর পর ফের নতুন সম্পর্কের কারণে স্ত্রীকে খুন! এ যেন রীতিমতো সিরিয়াল কিলিং।

৪র্থ বিয়ে করার জন্য তৃতীয় স্ত্রীকে খুন করার অভিযোগে শেষ পর্যন্ত গ্রেফতার হলেন অভিযুক্ত ওই ঘাতক স্বামী।

ভারতের কলকাতার খিদিরপুরে চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে।

জানা গেছে, ঘাতক শেখ শাহজাদা খিদিরপুরের বাসিন্দা। গত শুক্রবার শাহজাদার খিদিরপুরের ডেন্ট মিশন রোডের বাড়ি থেকে উদ্ধার হয় তার তৃতীয় স্ত্রী সিরাত পারভিনের ঝুলন্ত মরদেহ।

মৃত পারভিনের পরিবারের দাবি, চতুর্থ এক নারীকে বিয়ে করা নিয়ে শাহজাদা ও পারভিনের মধ্যে দাম্পত্য কলহ চরম পর্যায় গিয়ে পৌঁছায়। তাইতো পথের কাঁটা দূর করার জন্যই শাহাজাদা খুন করেছেন তার তৃতীয় স্ত্রী সিরাত পারভিনকে। এমনটাই দাবি করেন নিহতের পরিবার।

এ ঘটনাটিই প্রথম নয়। এর আগেও শাহজাদা তার দ্বিতীয় স্ত্রীকে একইভাবে খুন করেছিলেন। কোনো যুবতীর সঙ্গে প্রথমে সম্পর্কে জড়াতেন, এরপর তাকে বিয়ে করতেন শাহজাদা বলে জানা যায়। বিয়ের কিছুদিন পরই ফের নতুন সম্পর্কে জড়িয়ে পড়াই ছিল তার ‘নেশা’। অবশ্য ‘অভ্যাস’ বলা যেতে পারে। এ নিয়ে অশান্তি চরম পর্যায় পৌঁছলে আগে স্ত্রীকে খুন করার পথ বেছে নিতেন ঘাতক শাহজাদা।

সিরাত পারভিনের সঙ্গেও তেমনটাই করেছেন তার স্বামী শাহজাদা। সিরাতকে বিয়ে করার কিছুদিন পর থেকেই তার উপর ব্যাপক অত্যাচার শুরু করেন শাহজাদা। দিন দিন সিরাতের সঙ্গে তার সম্পর্ক একেবারে তলানিতে গিয়ে পৌঁছায়। তারপরই চতুর্থ এক নারীর সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন শাহজাদা। ওই নারীকে বিয়ে করা নিয়েই তাদের মধ্যে প্রায়ই বিরোধ লেগে থাকত। শেষমেশ গত শুক্রবার স্ত্রী সিরাত পারভিনের মুখে বালিশ চাপা দিয়ে খুন করেন শাহজাদা।

কিন্তু, একের পর এক স্ত্রীকে খুন করেও প্রকাশ্যে বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছিলেন শাহজাদা। অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে কোনোবারই পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

সিরাতের পরিবারের দাবি, শুক্রবারও একই রকম ঘটনা ঘটায় সে। সেই একই জিনিস। অভিযোগ দায়েরের পরেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ।

এ ঘটনার প্রতিবাদে সিরাত পারভিনের মরদেহ নিয়ে পথ অবরোধ করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। অবশেষে শাহজাদাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ইতোমধ্যে এ ঘটনার তদন্ত কাজ শুরু হয়েছে বলে জানা যায়।

সূত্রঃ কোলকাতা ২৪

সংবাদটি ফেজবুকে সেয়ার করুন

অামাদের সংবাদ সংক্রান্ত তর্থ্য

সকল প্রকাশিত/সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট ইত্যদি অনলাইনের নানা সূত্র থেকে সংগৃহীত। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ীনয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের এবং প্রকাশিত সূত্রের। অামাদের প্রকাশিত সংবাদে কোন অভিযোগ থাকলে অামাদের জানাতে পারেন।


© All rights reserved © ২০১৭-২০১৮ দৈনিক সময়. কম
Design & Developed BY দৈনিক সময়