বিচিত্র সংবাদ

আত্মহত্যা করতে বাধ্য করে যে পাতা

কেমন পাতা, যা মানুষকে আত্মহত্যা করতে বাধ্য করে? ঘটনা কিন্তু মিথ্যে নয়। বিশেষ এক লতা বা গুল্মের পাতা শরীরে লাগলে অস্থিরতা বা যন্ত্রণা থেকেই ওই ব্যক্তি আত্মহত্যা করতে বাধ্য হন। আসুন জেনে নেই সেই পাতার রহস্য-

অস্ট্রেলিয়ার অঙ্গরাজ্য কুইন্সল্যান্ডের একটি রেইন ফরেস্টে প্রাকৃতিকভাবে জন্মায় এ লতা বা গুল্ম। সবুজের সমারোহে অসম্ভব সুন্দর এই বনে এই লতার জন্যই বেশ দুর্নাম রয়েছে। এটিকে এক ধরনের গাছ বলা হলেও মূলত কোন গাছ নয়। এটি আসলে এক ধরনের গুল্ম বা ঝাড়। এর মূল নাম ‘ডেনড্রোনাইড মোরোইডস’। অনেকে একে ‘যন্ত্রণাদায়ক গাছ’ বা ‘আত্মহত্যায় প্ররোচনাকারী গাছ’ বলে থাকেন। স্থানীয়ভাবে এটি ‘গিম্পি গিম্পি’ নামে বেশি পরিচিত।

পাতাগুলো দেখতে অনেকটা হৃদয়াকৃতির। আমাদের পান পাতার সঙ্গে যথেষ্ট মিল রয়েছে। এর চারপাশ ঘিরে থাকে ছোট ছোট হুল বা কাঁটা। ছোট পাতার হুলগুলো সাদা চুলের মতো, যা অনেক সময় খালি চোখে দেখা যায় না।

কেন এই আত্মহত্যা: কাঁটার বিষ প্রথমে মাংসপেশীতে এবং পরবর্তীতে অস্থিমজ্জায় ছড়িয়ে পড়ে। ফলে আক্রান্ত ব্যক্তির এমন ব্যথা সহ্য করা কষ্টকর হয়ে পড়ে। এ ব্যথা এমন আকার ধারণ করে যে, যেকোন পশুকেও মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিতে পারে। আর মানুষের ক্ষেত্রে ব্যথার পরিমাণ এমন পর্যায়ে চলে যায় যে, আক্রান্ত ব্যক্তি মুক্তির উপায় হিসেবে আত্মহত্যাকেই বেছে নেন। তবে এ ধরনের অনুভূতি একমাত্র চরম পর্যায়ে হয়ে থাকে।গবেষকরা মনে করেন, গাছটির পাতাগুলো এতটাই সংবেদনশীল যে নিশ্বাসের সঙ্গেও যদি কোন কারণে এর হুল নাকের ভেতর ঢুকে যায়, তবে সর্দি, র্যাশ, এমনকি নাক থেকে রক্ত পর্যন্ত পড়তে পারে। তারা এ ধরনের শরীরিক যন্ত্রণাকে অ্যাসিডদগ্ধ বা বিদ্যুৎস্পৃষ্ট ব্যক্তির সঙ্গে তুলনা করেছেন।

সূত্রঃ ইন্টারনেট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close