মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ০৬:০৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
কলাপাড়ায় যাত্রীবাহী বাস পুকুরে পড়ে আহত ১৩…. হাদিসের গল্পঃ পাহাড়ের গুহায় আঁটকে পড়া তিন যুবক…. ফেনীতে সংখ্যালঘুরা হামলা বা নির্যাতনের স্বীকার হলে,নির্যাতন কারীদের জায়গা ফেনীর মাটিতে হবেনা-নিজাম উদ্দিন হাজারী এমপি…. ফেনী র‍্যাব-৭ এর একিদিন চালানো দুটি অভিযানে অস্ত্র গুলি ও মাদক উদ্ধার সহ আটক-৩…. কালীগঞ্জে বিপুল পরিমান ফেন্সিডিল ও পিকআপ ভ্যানসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক…. ঝিনাইদহে পুলিশের বিশেষ অভিযানে ১ জামায়াত কর্মীসহ ৫৮ জন গ্রেফতার…. রংপুর শহরে দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে পাঁচজন নিহত… চট্টগ্রামে বাস-ট্রেন সংঘর্ষে নিহত ২…. ফেনীর দাঘনভূঞাঁয় বিএনপি’র ৪০ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর মঞ্চ ভেঙ্গে গুটিয়ে দিয়েছে দূবৃর্ত্তরা… ফেনীর ছাগলনাইয়ায় মহামায়া ইউপি চেয়ারম্যানকে মারধরের অভিযোগে ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ….
উদ্বোধনের আগেই সেতুতে ফাটল!

উদ্বোধনের আগেই সেতুতে ফাটল!

পাবনার চাটমোহরে ডিবিগ্রাম ইউনিয়নের হোগলবাড়িয়া গ্রামের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া চন্দ্রাবতী খালের ওপর নির্মানাধীন ব্রীজ নির্মাণের পরেই ফাটল দেখা দিয়েছে। নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের অবহেলার কারণে এমন অবস্থা হয়েছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।

অতিসম্প্রতি ব্রীজে বিশাল ফাটলের ছবি তুলে স্থানীয় কয়েকজন যুবক এর প্রতিকার চেয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ার পর নজরে আসে প্রশাসনের। পরে তড়িঘড়ি করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের লোকজন বালু ও সিমেন্ট দিয়ে বিশাল ফাটলগুলো বন্ধ করে দেয়। তবে জোড়াতালির ব্রীজটি কতদিন টিকবে তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন এলাকাবাসী।

জানা গেছে, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের সেতু কালভার্ট নির্মাণ শীর্ষক প্রকল্পের ২০১৬-১৭ অর্থবছরে চল্লিশ লাখ ৯৪ হাজার ৫শ’ টাকা ব্যায়ে হোগলবাড়িয়া আহম্মদের বাড়ির সামনে থেকে চন্দ্রাবতী খালের ওপর ৫০ ফুট দৈর্ঘ্যের ব্রীজ নির্মাণের কাজ পায় নাটোরের আলাইপুর এলাকার মৌসুমী ট্রেডিং। কাজটি এই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান না করে গোপনে বিক্রি করেন চাটমোহর উপজেলার এক আওয়ামীলীগ নেতার নিকট। এই আ’লীগ নেতা কাজটি ক্রয়ের পরে ২০১৬-১৭ অর্থবছরের কাজ অজ্ঞাত কারণে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে এসে শুরু করেন।

শুরুতে এলাকাবাসী নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ তুলে এর প্রতিবাদ জানালেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কর্ণপাত না করে তাদের মতো করে কাজ চালিয়ে যান। পরে ফাটল দেখা দিলে তড়িঘড়ি করে বালু-সিমেন্ট দিয়ে ফাটলগুলো বন্ধ করে দেওয়ার পরে আবারও সেতুর বিভিন্ন অংশে ফাটল দেখা দিয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে হোগলবাড়িয়া গ্রামের বেশ কয়েকজন জানান, ব্রীজ নির্মাণের সময় অনিয়মের প্রতিবাদ করলে এলাকার কয়েকজন প্রভাবশালীকে দিয়ে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখানো হয়। কাজ শুরু হওয়ার পর থেকে উপজেলা অফিসের কোন কর্মকর্তাকে ব্রীজের আশে পাশে দেখা যায়নি।

এদিকে নির্মানাধীন সেতু এলাকায় ঠিকাদারের লোকজনকে না পেয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসে ঠিকাদারের মোবাইল নাম্বার চাইলে তারা বলেন, ‘ঠিকাদারের মোবাইল নম্বর আমাদের কাছে নেই’ এ বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. শামীম এহসান অফিসের কাজে বাইরে থাকায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সরকার অসীম কুমার বলেন, ‘বিষয়টি জানার পর সরেজমিনে গিয়েছিলাম। ঠিকাদারকে ত্রুটিপূর্ণ জায়গাগুলো মেরামত করতে বলা হয়েছে। কাজের মান ভাল হয়েছে কিনা তা দেখে পরবর্তীতে বিল দেয়া হবে।’


সংবাদটি ফেজবুকে সেয়ার করুন


© All rights reserved © ২০১৭-২০১৮ দৈনিক সময়. কম
Design & Developed BY দৈনিক সময়
Translate »