রবিবার, ২২ Jul ২০১৮, ০১:৩৫ পূর্বাহ্ন

জুতা-সাইকেলই কি থাই কিশোরদের জীবন বাঁচাল ?

জুতা-সাইকেলই কি থাই কিশোরদের জীবন বাঁচাল ?

থাইল্যান্ডের থ্যাম লুয়াং গুহা থেকে স্থানীয় ফুটবল দল উইল্ড বোরের ১২ সদস্য ও তাদের কোচকে উদ্ধারে থাইল্যান্ডসহ সারাবিশ্বে স্বস্তির নিঃশ্বাস বইছে। তিনদিনের শ্বাসরুদ্ধকর অভিযানের শেষদিন মঙ্গলবার কোচসহ অন্য চার কিশোরকে বের করে আনা সম্ভব হয়।

কিন্তু কিভাবে ওই কিশোর ফুটবলাররা ও তাদের কোচ এই গুহার মধ্যে রয়েছে, এবং তা কীভাবে নিশ্চিত হল পুলিশ?

২৩ জুন থাম লুয়াং গুহায় প্রবেশ করে কিশোর ফুটবল দলটি। গুহার মুখে ফেলে যায় সাইকেল, পিঠব্যাগ ও তাদের জুতা জোড়া। তাদের কারও একজনের জন্মদিন উদযাপন করতেই তারা সেখানে প্রবেশ করে।

কিন্তু সেখানে তাদের সামনে এক থ্রিলার অপেক্ষা করছিল তা তারা একটু পরেই টের পায়। গুহার বাইরে মুষলধারে বৃষ্টি শুরু হলে ভেতরে পানি বাড়তে থাকে। পানিতে বন্ধ হয়ে যায় ‘টি-জংশন’ নামে পরিচিত বিপজ্জনক স্থানটি। বাইরে আলো-বাতাস আর দেখতে পায় না তারা। দিন চলে যায়, ছেলে বাড়ি ফেরে না। পুলিশে খবর যায়। তাদের খোঁজে নেমে পড়ে পুলিশ প্রশাসন।

দুই দিন পর সন্দেহ থেকেই গুহায় কিছুদূর প্রবেশ করেই তাদের পরিত্যক্ত সাইকেল-জুতা ও ব্যাগ পায় পুলিশ। একটু স্বস্তি মেলে সবার মনে। তবে গুহার সামনে এগিয়ে গেলে জানা যায়, গুহার মুখ পানিতে নিমজ্জিত। এরই মধ্যে উদ্ধার টিমও হাজির হয়।

আটকেপড়াদের সঙ্গে কোনও যোগাযোগও করা সম্ভব হয়নি। ভূগর্ভের নিচে কয়েক কিলোমিটার পর্যন্ত বিস্তৃত গুহাটি পর্যটকদের কাছে খুবই আগ্রহের বিষয়। গুহায় প্রবেশের পর ভারী বৃষ্টির কারণে জলপ্রবাহ বেড়ে গিয়ে প্রবেশমুখ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তারা আটকে পড়ে কিশোররা।

Source : BdMorning

সংবাদটি ফেজবুকে সেয়ার করুন

অামাদের সংবাদ সংক্রান্ত তর্থ্য

সকল প্রকাশিত/সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট ইত্যদি অনলাইনের নানা সূত্র থেকে সংগৃহীত। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ীনয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের এবং প্রকাশিত সূত্রের। অামাদের প্রকাশিত সংবাদে কোন অভিযোগ থাকলে অামাদের জানাতে পারেন।


© All rights reserved © ২০১৭-২০১৮ দৈনিক সময়. কম
Design & Developed BY দৈনিক সময়