মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ০৬:০৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
কলাপাড়ায় যাত্রীবাহী বাস পুকুরে পড়ে আহত ১৩…. হাদিসের গল্পঃ পাহাড়ের গুহায় আঁটকে পড়া তিন যুবক…. ফেনীতে সংখ্যালঘুরা হামলা বা নির্যাতনের স্বীকার হলে,নির্যাতন কারীদের জায়গা ফেনীর মাটিতে হবেনা-নিজাম উদ্দিন হাজারী এমপি…. ফেনী র‍্যাব-৭ এর একিদিন চালানো দুটি অভিযানে অস্ত্র গুলি ও মাদক উদ্ধার সহ আটক-৩…. কালীগঞ্জে বিপুল পরিমান ফেন্সিডিল ও পিকআপ ভ্যানসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক…. ঝিনাইদহে পুলিশের বিশেষ অভিযানে ১ জামায়াত কর্মীসহ ৫৮ জন গ্রেফতার…. রংপুর শহরে দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে পাঁচজন নিহত… চট্টগ্রামে বাস-ট্রেন সংঘর্ষে নিহত ২…. ফেনীর দাঘনভূঞাঁয় বিএনপি’র ৪০ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর মঞ্চ ভেঙ্গে গুটিয়ে দিয়েছে দূবৃর্ত্তরা… ফেনীর ছাগলনাইয়ায় মহামায়া ইউপি চেয়ারম্যানকে মারধরের অভিযোগে ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ….
অফিস খুলে পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি, প্রতারক চক্র হতে সাবধান!

অফিস খুলে পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি, প্রতারক চক্র হতে সাবধান!

পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে প্রতারণা করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে একটি প্রতারণাকারী চক্রের মুল হোতাসহ ১৩ জনকে গ্রেফতার করেছে অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) অর্গানাইজড ক্রাইম ইউনিট।

বৃহস্পতিবার (১২ জুলাই) দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইমের বিশেষ পুলিশ সুপার (এসএসপি) মোল্যা নজরুল ইসলাম। এর আগে বুধবার (১১ জুলাই) রাতে তাদের গ্রেফতার করা হয় এই চক্রের সদস্যদের।

গ্রেফতারকৃতরা হলো- আদনান তালুকদার ওরফে আল আমিন (৪০), খন্দকার আলমগীর হোসেন ওরফে মাসুম (৪৩), জহুরুল হক (৪২), সৈয়দ শাহারিয়ার সোহাগ (৩২), খালেদ মাহমুদ (৩২), রহমত উল্লাহ (২১), হাফিজুর রহমান (২৯), ইনছান আলী (৩৭), সিরাজুল ইসলাম (৩৫), নাদিম উদ্দিন (৩১), মেহেদি হাসান (২১), হানিফ কাজী (৪৫) ও মামুনুর রশিদ (৩৮)।

জানা যায়, সংঘবদ্ধ এই প্রতারক চক্রটি অত্যন্ত সুচতুর ও ধুরন্ধর প্রকৃতির। তারা পরস্পর যোগসাজশে দেশি বিদেশি বিভিন্ন স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানের নামে প্রতারনার উদ্দেশ্যে প্রথমে বিভিন্ন নামী প্রতিষ্ঠানের নামে কর্পোরেট এলাকায় অফিস খুলে এবং চোঁখ ধাঁধানো ডেকোরেশন করে থাকে যেন ভিকটিমের বিশ্বাস অর্জনে সহজ হয়। এরপর তারা দেশের কিছু জাতীয় দৈনিকে লোভনীয় বেতনে চাকরী ও বিভিন্ন সুযোগ সুবিধাসম্বলিত বিজ্ঞাপন প্রচার করে।

এ সব বিজ্ঞাপন দেখে চাকুরী প্রার্থীরা তাদের সাথে যোগাযোগ করলে তারা ইন্টারভিউ নেয়ার নাটক করে আগ্রহী সবাইকে চাকরী হয়ে গেছে বলে জানিয়ে দেয়। এরপর কৌশলে সিকিউরিটি মানি, পেনশন স্কিম এবং ব্যক্তিগত গাড়ি দেওয়ার নামে তিন থেকে পনের লাখ টাকা নিয়ে নেয়।

চাকুরীপ্রার্থীরা নির্ধারিত তারিখে যোগদান করতে গেলে উক্ত প্রতিষ্ঠান তালাবদ্ধ অবস্থায় দেখতে পায়। পরবর্তীতে ফোনে যেগাযোগ করতে গেলে দেখা যায় চাকরী দাতাদের সবার ফোন নাম্বার বন্ধ।

এই চক্রটি গত ২০১৩ সাল থেকে এই পর্যন্ত ফরচুন গ্রুপ অব কম্পানি, রেক্সন গ্রুপ অব কম্পানি, ইস্তার্ন গ্রুপ অব কম্পানি, কেয়া গ্রুপ অব কম্পানি, নেক্সাস গ্রুপ অব কম্পানি, সানলাইট গ্রুপ অব কম্পানি, মাক্স ভিসন গ্রুপ অব কম্পানি নামে বিভিন্ন সময় প্রতিষ্ঠান খুলে শতশত মানুষকে প্রতারিত করেছে।

আরও জানা যায়, প্রতারক চক্রটি গত ২৩/০২/২০১৮ এবং ১১/০৩/২০১৮ ইং তারিখে একটি পত্রিকায় প্রকাশিত যথাক্রমে “সানলাইট গ্রুপ রিক্রুটমেন্ট, “জব ভেকেন্সি সানলাইট গ্রুপ” শিরোনামে বিজ্ঞাপন দেয়। বিজ্ঞাপনের সূত্র ধরে চাকুরীপ্রার্থীরা উক্ত কোম্পানীর ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে তাদের কোম্পানীর হোম পেইজ সহ বিভিন্ন প্রোডাক্ট দেখে মুগ্ধ হয়ে বিভিন্ন পদে সানলাইট কোম্পানীর নিজস্ব ই-মেইল এর মাধ্যমে আবেদন করে। তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতে উচ্চ বেতন, পদ, ব্যক্তিগত গাড়ি ও বিভিন্ন সুযোগসুবিধা সহ চাকুরী দেয়ার বিপরীতে সিকিউরিটি মানি,পেনশন স্কিম সহ নানা অজুহাতে প্রায় অর্ধশত জনের নিকট থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়।

এ ঘটনায় পল্টন থানায় একটি মামলা রুজু হয়। মামলাটির দ্বায়িত্বভার অর্গানাইজড ক্রাইম, সিআইডি গ্রহণ করার পর গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তারা জানতে পারে, সানালাইট গ্রুপ অব কোম্পানিজের নামে প্রতারণা করে দীর্ঘদিন গা ঢাকা দিয়ে থাকার পর নতুন করে প্রতারণার উদ্যেশ্যে ম্যাক্স ভিশন গ্রুপ অব কোম্পানিজের নামে বিলাশবহুল একটি অফিস ভাড়া নিয়ে উদ্বোধন করতে যাচ্ছে।

এমন সংবাদের ভিত্তিতে গত ১১/০৭/২০১৮ ইং তারিখে ভুয়া অফিসটির উদ্বোধন অনুষ্ঠান হতে চক্রটির মূল হোতাসহ মোট ১৩ জনকে গ্রেফতার করে সিআইডি অর্গানাইজড ক্রাইমের একটি বিশেষ দল।

এ ব্যাপারে মোল্যা নজরুল ইসলাম বলেন, অবসরপ্রাপ্ত সরকারি-বেসরকারি চাকরিজীবীদের টার্গেট করে এই চক্রটি। চক্রটি তিন-চার মাস পর পর তাদের অবস্থান পরিবর্তন করে। বিভিন্ন নামে অফিস খুলে চাকরি দেওয়ার লোভ দেখিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে তারা।

প্রাথমিক তদন্তে জানা যায়, আটক চক্রটির বিরুদ্ধে রমনা, পল্টন ও গুলশান থানায় আরো আটটি প্রতারণার মামলা রয়েছে। চক্রটির প্রতারণার মাধ্যমে অর্জিত অবৈধ অর্থ জব্দ করার লক্ষ্যে মানি লন্ডারিং আইনের অধীনে একটি মামলা রুজু করার কাজ প্রক্রিয়াধীন আছে

Source : BDMorning


সংবাদটি ফেজবুকে সেয়ার করুন


© All rights reserved © ২০১৭-২০১৮ দৈনিক সময়. কম
Design & Developed BY দৈনিক সময়
Translate »