সোমবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮, ১২:২৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
কলাপাড়ায় যাত্রীবাহী বাস পুকুরে পড়ে আহত ১৩…. হাদিসের গল্পঃ পাহাড়ের গুহায় আঁটকে পড়া তিন যুবক…. ফেনীতে সংখ্যালঘুরা হামলা বা নির্যাতনের স্বীকার হলে,নির্যাতন কারীদের জায়গা ফেনীর মাটিতে হবেনা-নিজাম উদ্দিন হাজারী এমপি…. ফেনী র‍্যাব-৭ এর একিদিন চালানো দুটি অভিযানে অস্ত্র গুলি ও মাদক উদ্ধার সহ আটক-৩…. কালীগঞ্জে বিপুল পরিমান ফেন্সিডিল ও পিকআপ ভ্যানসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক…. ঝিনাইদহে পুলিশের বিশেষ অভিযানে ১ জামায়াত কর্মীসহ ৫৮ জন গ্রেফতার…. রংপুর শহরে দুটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে পাঁচজন নিহত… চট্টগ্রামে বাস-ট্রেন সংঘর্ষে নিহত ২…. ফেনীর দাঘনভূঞাঁয় বিএনপি’র ৪০ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর মঞ্চ ভেঙ্গে গুটিয়ে দিয়েছে দূবৃর্ত্তরা… ফেনীর ছাগলনাইয়ায় মহামায়া ইউপি চেয়ারম্যানকে মারধরের অভিযোগে ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ….
কাজটা ভাল করিনি, এখন বলছে মেহের

কাজটা ভাল করিনি, এখন বলছে মেহের

বাবা-মায়ের ইচ্ছে, ছেলে মন দিয়ে লেখাপড়াটাই করুক। কিন্তু নবম শ্রেণির ছেলের চোখে তখন ‘বড় হওয়ার’ ঘোর লেগে গিয়েছে। ধৈর্য ধরার সময় কোথায় তার।

একদিন কাউকে কিচ্ছুটি না জানিয়ে সে বন্ধুর সঙ্গে পাড়ি দেয় মুম্বইয়ে। দু’বছর সেখানে কাটিয়ে, নানা অভিজ্ঞতার পরে বাড়ির জন্য মন কেমন করতে শুরু করে ছেলের। শেষমেশ ফিরে এসেছে মেহের আলি। ছেলেকে আর চোখের আড়াল করতে চান না মা কাশ্মীরা। বললেন, ‘‘ওর যা খুশি করুক। পড়তে চাইলে পড়ুক। কাজ করতে চাইলে তা-ই করক। আর কিছুতে বাধা দেব না। কিন্তু এ ভাবে বুক খালি করে যেন চলে না যায়।’’

অশোকনগরের ন’পাড়ার মহিষাপোতায় বাড়ি মেহেরের। বছর সতেরোর ছেলেটি জানায়, পড়াশোনায় তার মন ছিল না। কাজ করে তাড়াতাড়ি বড় হওয়ার স্বপ্ন ছিল চোখে। বাড়িতে লুকিয়ে স্কুল পালিয়ে সেলাইয়ের কাজ শিখতে শুরু করে।

ছেলে নিয়মিত স্কুল যাচ্ছে না জানতে পেরে বকাবকি করেছিলেন বাবা-মা। এমন একটা সুযোগই তো খুঁজছিল ছেলে। ২০১৬ সালের ৩০ জুন বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়ে সে।

চারি দিকে খোঁজ খোঁজ। থানায় ডায়েরি হয়। কিন্তু ততক্ষণ এক বন্ধুর সঙ্গে মুম্বইয়ের ট্রেনে উঠে বসেছে মেহের। সঙ্গে হিজলিয়া গ্রামের সাদ্দাম হোসেন নামে এক বন্ধু। সাদ্দাম সেলাইয়ের কাজ করত।

এ দিকে, ট্রেনের টিকিট কাটার পয়সা ছিল না কারও কাছে। পথে টিকিট পরীক্ষকের হাতে সাদ্দাম ধরা পড়ে। ভয়ে সিটের নীচে লুকিয়ে ছিল মেহের। কোনও রকমে মুম্বই পৌঁছে এ দিক ও দিক ঘুরতে ঘুরতে দুই কিশোরের আলাপ হয়ে যায় মুর্শিদাবাদের কয়েকজন যুবকের সঙ্গে। তাঁদের সহযোগিতায় একটি ব্যাগের দোকানে কাজও জুটিয়ে নেয় মেহের। তবে বেতন মিলত না। শুধু থাকা-খাওয়ার বিনিময়ে কাজ।

তাতেই খুশি ছিল ছেলেটা। নতুন জায়গা আর মানুষ দেখার নেশায় বিভোর। কিন্তু কিছু দিন আগে জন্ডিসে পড়ে। জ্বর গায়ে দুর্বল শরীরে মনে পড়ে মায়ের আঁচলের গন্ধ। মনে পড়ে বাবার স্নেহ। বোনের সঙ্গে খুনসুটি। বাড়ি ফেরার জন্য আকুলি-বিকুলি করতে থাকে ছেলেটা।

দোকান কর্তৃপক্ষ বুঝেছিলেন, মেহেরের বাড়ি ফেরাই উচিত। হাজার খানেক টাকা আর ট্রেনের টিকিট ধরান মেহেরের হাতে।

বৃহস্পতিবার হঠাৎ বাড়িতে হাজির সেই ছেলে। মা কাশ্মীরা, বাবা আজগর— দু’জনেই কেঁদে ভাসিয়েছেন ছেলেকে ফিরে পেয়ে। আত্মীয়-স্বজনদের বাড়িতে ডেকে ইতিমধ্যেই দাওয়াত দিয়েছেন। শনিবার ছেলেকে নিয়ে তাঁরা এসেছিলেন থানায়। ‘নিখোঁজ ডায়েরি’ ফিরিয়ে নিতে হত যে। পুলিশ কর্তারাও ‘কেস’ বন্ধ করতে পেরে খুশি। এক পুলিশ আধিকারিকের কথায়, ‘‘অনেকে নিখোঁজ ডায়েরি করে যান। আমরা খোঁজ-খবর করি। অনেকে পরে ফিরে এলেও পরিবারের লোকজন আর জানান না। এ ক্ষেত্রে ছেলেটির বাবা-মা দায়িত্বপূর্ণ কাজ করেছেন। আর ঘরের ছেলেকে ঘরে ফিরতে দেখে আমাদেরও ভাল লাগছে।’’ মেহের বলে, ‘‘ভেবে দেখলাম, দেশ ঘোরার সময় এখনও ঢের পাব। টাকাও রোজগার করতে পারব। কিন্তু বাবা-মাকে ছেড়ে ও ভাবে যাওয়াটা ঠিক হয়নি।’’


সংবাদটি ফেজবুকে সেয়ার করুন


© All rights reserved © ২০১৭-২০১৮ দৈনিক সময়. কম
Design & Developed BY দৈনিক সময়
Translate »