সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১, ০৯:৩৫ অপরাহ্ন
সর্বশেষঃ
ফেনীতে করোনা উপসর্গ নিয়ে একের পর এক মৃ’ত্যু এবার নতুন করে এলাকাভিত্তিক লকডাউনের চিন্তা করছে সরকার হঠাৎ রক্তচোষা পোকার আতঙ্ক, আক্রান্ত ২৫ হাজারের বেশি, কম পড়েছে ভ্যাকসিন যুবলীগ নেতার হাতে অমানবিক নির্যাতনের শিকার বৃদ্ধ, ভিডিও ভাইরাল জায়েদ খানকে কয়জন চেনে? কড়া জবাব দিলেন হিরো আলম চুমাচুমি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়- কেন এমন নাম? যুক্তরাষ্ট্রে চলছে বিক্ষোভ সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত থাকতে বললেন ট্রাম্প যুক্তরাজ্যের এই প্রথম হিজাবি বিচারক :রাফিয়া আরশাদ আমার শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত একটা টাকাও হারাম খেতে চাই না: এসপি ফরিদ উদ্দীন সীমানা অতিক্রম করেছে চীনা সৈন্যরা উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে মোদী

নুর মোহাম্মদ ৪০ বছরে বিনা মুল্যে ৪ হাজার কবর খুঁড়েছেন

দৈনিক সময়:
                                               
  •   প্রকাশিত : ১২:৪৬ pm | রবিবার ২৪ মে, ২০২০
  • ৪৬০ বার পঠিত

বিজয়ের বাংলা:
নুর মোহাম্মদ ৪০ বছরে বিনা মুল্যে ৪ হাজার কবর খুঁড়েছেন। নূর মোহাম্মদ। বয়স ৮০ বছর। এলাকার মানুষ তাকে নুরু চাচা বলেই ডাাকেন। কোনো পারিশ্রমিক ছাড়াই ৪০ বছর ধরে মৃ’ত মানুষের জন্য কবর খুঁড়ছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার আজাইপুর মহল্লার বাসিন্দা এই নূর মোহাম্মদ।

কারও মৃ’ত্যুর সংবাদ পেলেই ছুটে যান গোরস্থানে। কবর খোঁড়া থেকে শুরু করে দাফনের শেষ পর্যন্ত তিনি সহযোগিতা করেন।
নূর মোহাম্মদের সঙ্গে তার আজাইপুরের ছোট্ট বাড়িতে বসে কথা হয় । তিনি জানান, দরিদ্র পরিবারে তার জন্ম। দিনমজুরি করে ৪ ছেলে ও ৪ মেয়ের বিয়ে দিয়েছেন।

ছেলেরাও রাজমিস্ত্রীর কাজ করে। সবাই এখন নিজ নিজ সংসার নিয়ে ব্যস্ত। তিনি কখনও মাটি কাটা, কখনও দিনমজুর আবার কখনও রাজমিস্ত্রির কাজ করে রোজগার করেন। অসুস্থ স্ত্রীকে নিয়ে টিন ও মাটির টালির ছাপড়া ছোট একটা ঘরে বসবাস করেন। বয়সের ভারে শরীরটা এখন দুর্বল হয়ে গেছে। আগের মত কাজ করতে পারেন না।

প্রতিমাসে ৮ থেকে ১০ জন মৃ’তের জন্য কবর খুঁড়েছেন। সে হিসেবে সবমিলিয়ে প্রায় ৪ থেকে সাড়ে ৪ হাজার মৃ’তের কবর খুঁড়েছেন তিনি। গত ৪০ বছর ধরে বিনাপারিশ্রমিকে মৃত মানুষের দাফনের জন্য এ কাজটি করে যাচ্ছেন।

শুধু তার নিজের এলাকাতেই নয়, আশপাশের পাড়া মহল্লায় কেউ মারা গেলেই তিনি ছুটে যান। অনেক সময় মৃতের আত্মীয়-স্বজন তাকে ডেকে নিয়ে যায়। চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার আজাইপুর মহল্লার সারোয়ার হোসেন বলেন, কারও মৃ’ত্যুর খবর পেলেই ছুটে যান নুরু চাচা।

কারও কাছে টাকা পয়সা নেন না। কোথাও কাজ করার সময় কোনো মানুষের মৃ’ত্যুর খবর পেলে কাজ ছেড়ে সঙ্গে সঙ্গে তিনি চলে যান কবর খোঁড়ার জন্য। কবর খোঁড়ার জন্য তিনি কোনো পারিশ্রমিক নেন না।

কবর খোঁড়ার কারিগর নুরু চাচা আমাদের এলাকার গর্ব এবং সকলের শ্রদ্ধারপাত্র। নূর মোহাম্মদে বলেন, শত্রু-মিত্র, আত্মীয়-স্বজন, পাড়া-প্রতিবেশী অথবা অপরিচিত যেই হোক না কেন মৃত্যুর খবর শোনা মাত্রই ছুটে যাই কবরস্থানে।

নিয়ম অনুযায়ী কবর খুঁড়ে দিয়ে আসি। শুধু কবর নয় তার জানাজার নামাজেও শরীক হই। অনেক পরিবারের মানুষ কবর খোঁড়ার জন্য টাকা দিতে আসে কিস্তু আমি সেটা নেই না। কারণ আমি মনে করি এটা একটা মহত ও ভালো কাজ। আমাকেও তো একদিন ম’রতে হবে।

মাটির ঘর কবরে যেতে হবে সবাইকে। এ কাজটি করলে মন থেকে প্রশান্তি পেয়ে থাকি। তা ছাড়া আমি মনে করি মহান আল্লাহ এ কাজের জন্য হয়তো আমাকে ও আমার সকল পাপ কাজকে ক্ষমা করে দেবেন। তিনি আরও বলেন, সমাজে মানুষের উপকারের জন্য নানা রকম কাজ মানুষ করে থাকে। মৃ’ত মানুষের জন্য স্বেচ্ছায় এ পেশাকেই বেছে নিয়েছি।
আরো পড়ুনঃ জার্মানিতে মুসলিমদের নামাজ আদায়ের জন্য গির্জা খুলে দিল খ্রিস্টানরা

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৭-২০২০ 'দৈনিক সময়'
The website Developed By Sadeshbangla.Com