মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ১০:২৫ অপরাহ্ন
সর্বশেষঃ
৪৭ বছর বয়স হতে কেন মানুষ নিজেকে বৃদ্ধ ভাবতে শুরু করে? ফেনীতে করোনা উপসর্গ নিয়ে একের পর এক মৃ’ত্যু এবার নতুন করে এলাকাভিত্তিক লকডাউনের চিন্তা করছে সরকার হঠাৎ রক্তচোষা পোকার আতঙ্ক, আক্রান্ত ২৫ হাজারের বেশি, কম পড়েছে ভ্যাকসিন যুবলীগ নেতার হাতে অমানবিক নির্যাতনের শিকার বৃদ্ধ, ভিডিও ভাইরাল জায়েদ খানকে কয়জন চেনে? কড়া জবাব দিলেন হিরো আলম চুমাচুমি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়- কেন এমন নাম? যুক্তরাষ্ট্রে চলছে বিক্ষোভ সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত থাকতে বললেন ট্রাম্প যুক্তরাজ্যের এই প্রথম হিজাবি বিচারক :রাফিয়া আরশাদ আমার শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত একটা টাকাও হারাম খেতে চাই না: এসপি ফরিদ উদ্দীন

৪৭ বছর বয়স হতে কেন মানুষ নিজেকে বৃদ্ধ ভাবতে শুরু করে?

দৈনিক সময়:
                                               
  •   প্রকাশিত : ০৩:১৩ am | শুক্রবার ২৮ মে, ২০২১
  • ৭৭ বার পঠিত

দৈনিক সময়:
টেকনাফ নিউজ ডেস্ক :: একজন মানুষ ঠিক যতটা সময় বেঁচে থাকেন তাকে তার কালানুক্রমিক বয়স বা ক্রনোলজিক্যল এজ বলা হয়। বিপরীতে, জৈবিক বয়স বা’য়োলজিক্যল এজ সেই বয়সকে বোঝায় যা কেউ অনুভব করেন। একে এক অর্থে মনের বয়সও বলা যায়। চিকিৎসক এবং বিজ্ঞানীদের

মধ্যে উপযুক্ত স্বাস্থ্য ব্যবস্থা হিসাবে এই জৈবিক বয়সের পরিমাপ বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জন করছে।
মস্তিষ্ক বিজ্ঞানীদের মতে, ৩০ বছর বয়সের আগে কেউই সম্পূর্ণ রূপে “প্রা’প্তবয়স্ক” হয়ে ওঠে না।বর্তমানে যুক্তরাজ্যসহ অনেক দেশের আইন অনুসারে কারও বয়স ১৮ বছর হলেই তাকে

একজন পরিপক্ব প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ হিসেবে মনে করা হয়।যদিও কোন মানুষ নিজেকে অল্প বয়স্ক মনে ‘করবেন না বৃদ্ধ তা অনেকগুলো বিষয়ের উপর নির্ভর করে। তবে সাধারণভাবে বলা যায়, বেশিরভাগ মানুষই ৪৭ বছর বয়স থেকে নিজেকে বৃদ্ধ বোধ করতে শুরু করেন। সম্প্রতি ফস্টার

গ্রান্ট আয়োজিত এবং ওয়ানপোল দ্বারা পরিচালিত এক সমীক্ষা থেকে এই তথ্য জানা গিয়েছে। সমীক্ষাটিতে ২ হাজার ব্যক্তি অংশগ্রহণ করেছিলেন। তাদের প্রত্যে’কেরই বয়স ছিল ৪০ এর বেশি। তাদের প্রতি পাঁচজনের মধ্যে প্রায়

চারজনই (৭৭ শতাংশ) বলেছেন যে, তারা তাদের কালানু’ক্রমিক বয়সের চেয়ে নিজেদেরকে কম বয়সী অনুভব করেন। এমনকি তাদের মধ্যে অর্ধেকেরও বেশি (৫৫ শতাংশ) যখন আয়নায় তাকান তখন নিজেদেরকে ‘তরুণ’ হিসাবেই দেখতে পান।

বুড়ো হওয়ার অর্থ কী?
উত্তরদাতাদের জন্য, বার্ধক্যের সংজ্ঞা হিসাবে তিনটি প্রধান লক্ষণ দেয়া হয়েছিল। স্বাচ্ছন্দ্যের সাথে নির্দিষ্ট কিছু কার্য সম্পাদন করতে অক্ষমতা, টপিকাল পপ-কালচার রে’ফারেন্সগুলি বোঝার সমস্যা এবং প্রসাধনী ক্ষয় (বলিরেখা, পাকা চুল ইত্যাদি)। উত্তরদাতাদের ৬১ শতাংশ বলেছেন যে,

ছোট লেখা পড়তে সমস্যা হওয়ার কারণে কাউকে পড়ে দিতে অনুরোধ করার বিষয়টি বয়স হওয়ার একটি জোরালো লক্ষণ। এমনকি তাদের মধ্যে ২৯ শতাংশই চিকিৎসকের কাছ থেকে চশমা পড়ার পরামর্শ পাওয়াকে বয়স হওয়ার একটি নির্দিষ্ট লক্ষণ হিসাবে চিহ্নিত করেছেন।অন্যান্য লক্ষণগুলোর মধ্যে অংশগ্রহণকারীদের ৪৩ শতাংশ

পুরানো দিনের পরিচিত গান শুনে, ৩৭ শতাংশ চেয়ার ঠেকে উঠ’তে কষ্ট হওয়ার কারণে, ৩৩ শতাংশ নাম শোনেননি এমন কোনও সেলিব্রিটি দেখার কারণে, ২৬ শতাংশ অস্পষ্টভাবে আলোকিত ঘরে দেখতে সমস্যা হওয়ার কারণে এবং টিকটকে না থাকার কারণে ২৪ শতাংশ ব্যক্তি কালানুক্রমিক বয়সের চেয়ে নিজেদেরকে

বেশি বয়স্ক বোধ করেছিলেন। তবুও তাদের মধ্যে ৪৭ শতাংশ ব্যক্তি নিজে’দেরকে বয়স্ক হিসাবে চিহ্নিত করতে অস্বস্তি বোধ করেন এবং কেউ যদি তাদের বৃদ্ধ বলে ডাকেন তবে বিরক্ত হন বলে জানিয়েছেন এক তৃতীয়াংশেরও বেশি ব্যক্তি।

কীভাবে তারুণ্যের বোধ বজায় রাখা যায়:
পূর্বে পরিচালিত গবেষণায় দেখা গেছে যে, স্ট্রেস এবং ডায়েট হ্রাস – এবং ঘুমের পরিমাণ বৃদ্ধি – মানুষকে তাদের কালানুক্রমিক বয়সের চেয়ে কম বয়সী বোধ করতে সহায়তা করতে পারে। জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের জন ডে সম্প্রতি বয়স হওয়ার জন্য দায়ী জিন টেলোমারের

সংক্ষিপ্তকরণকে কমিয়ে আধ্যাত্মিক প্রক্রিয়াটিকে যতটা সম্ভব বিরা’মহীন করার তিনটি উপায়ের রূপরেখা দিয়েছেন। টেলোমার হলো আমাদের ক্রোমোজোমের শেষে পাওয়া যৌগিক কাঠামো। আমাদের কোষগুলি যত বেশি সময় নিজেকে কপি করে তা আরও কম সংক্ষিপ্ত টেলোমেস হয়ে

যায়, যার ফলে কোষগুলি বয়সের হয়ে যায় এবং তাদের কিছু কার্যক্রিয়া হারাতে থাকে।
স্ট্রেস পরিচালনা করুন: ডঃ ডে একটি গবেষণার উদ্ধৃত করেছেন, অতিরিক্ত চাপ প্রতিবেদনে জড়িত অংশগ্রহণকারীদের টেলোমারের বয়স অন্তত ১০ বছর বাড়িয়ে দিয়েছে। তিনি লক্ষ্য করেছেন যে,
ধ্যান ও মননশীলতার কৌশলগুলি এই প্রভাবটিকে

প্রতিহত করতে পারে।অনুশীলন: ডেটা দেখিয়েছে যে অভ্যাসগত অনুশীলন নাটকীয়ভাবে অক্সিডেটিভ স্ট্রেস এবং দীর্ঘ’স্থায়ী প্রদাহ হ্রাস করে নাটকীয়ভাবে টেলোমারের বয়সকে ধীর করতে পারে।

ডায়েট: ভূমধ্যসাগরীয় খাদ্যের বিশেষত স্বাস্থ্য এবং দীর্ঘায়ুর সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। হার্ভার্ড গবেষকদের একটি দল দ্বারা পরিচালিত সাম্প্রতিক একটি মেটা-পর্যালোচনা এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে যে, জলপাইয়ের তেল, ফলমূল, শাকসবজি,

বাদাম এবং মাছ সমৃদ্ধ একটি খাদ্য; লাল মাংস এবং প্রক্রি’য়াজাত মাংসকে ন্যূনতম করা; এবং অল্প পরিমাণে পনির ও ওয়াইন খাওয়ার মাধ্যমে টেলোমার দীর্ঘতর হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সূত্র: দ্য ল্যাডারস

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৭-২০২০ 'দৈনিক সময়'
The website Developed By Sadeshbangla.Com